16

দেখা এক সত্য পরীক্ষা-১

১৫/০২/০৮ রোজ শুক্রবার

আল্লাহ একক ও সবর্শক্তিমান, সমস্ত শক্তি আল্লাহর, পবিত্র কোরআন মাজিদে আল্লাহ বলেন, সূরা ইখলাছ – “ক্বূল হু আল্লাহু আহাদ” আল্লাহ একক, অর্থাৎ বলেন তাহার আগে কেহ বা কিছু ছিলো না এবং সমস্ত কিছু ধ্বংস হওয়ার পর তিনি ছাড়া কিছুই থাকিবে না, অন্য এক আয়াতে বলেন “হুয়াল আউয়ালু অল আখিরু ও জাহিরু ও বাতিনু ওহুয়া বিকুল্লি শাইয়িন আলিম” তাহলে দেখা যায় তিনি জাহিরু অর্থাৎ প্রকাশ্য, অর্থাৎ তিনি কাহারো কাহারো নিকট প্রকাশ্য, আলাহ বলেন, “আল্লাহু নুরুছ ছামাওয়াতি ওয়াল আরদ” অর্থাৎ তিনি নূর বা একটি বিশেষ আলোয় প্রকাশ্য তাহার সৃষ্ট বস্তু বা জীবের মধ্যে, এখানে ছামাওয়াত অর্থ স্তর এবং ওয়াল আরদ অর্থ সৃষ্টির বিভিন্ন অবস্থান। পৃথিবীতে যত প্রকার বস্তু আছে মানুষের মধ্যে তত প্রকার পদার্থ রহিয়াছে। আমাদের আজকের কর্ম বা এবাদত হইল, আল্লাহ যে একক সত্তা আমাদের মধ্যে বিরাজমান তাহার প্রমান বা প্রতিবিম্ব দর্শন করা। আমরা কিভাবে তাহা দেখব বা তিনি কিভাবে আমাদের দৃষ্টি সীমার মধ্যে আসবেন তার জন্য আজ হতে নিম্ন বর্ণিত এবাদত করিতে আমরা আরম্ভ করিলাম।

১মঃ

“আউযু বিল্লাহ হি মিনাশ শাইতোয়ানির রাজিম”, অর্থাৎ আমি বিতাড়িত শয়তান, আমাদের সঙ্গের হামজাদ শয়তান ও নফসের শয়তান হইতে আল্লাহর কাছে তথা আমার সৃষ্টিকর্তা ও পরিচালন কর্তার নিকট আশ্রয় চাইতেছি যাহাতে বিতাড়িত শয়তান, হামজাদ শয়তান ও নফসের শয়তান, এখন হইতে আমি যে এবাদত, মোরাকাবা, মশাহাদা তথা গুপ্ত বেদ্য যে নুরের দর্শনের জন্য নিজেকে নিয়জিত করিতেছি তাহাতে যেন কোন প্রকার বাঁধা বা ভ্রান্ত খেয়াল আনয়ন করিতে না পারে।

২য়ঃ

“বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম”- আমার সৃষ্টিকর্তা ও পরিচালন কর্তার নিকট আমার আবেদন তিনি মোহাম্মাদ (সঃ) এর খাতিরে তাহার বিশেষ দয়ায় আমাকে তাহার নূর আমার মধ্যে দেখিবার, কাজ করিবার শক্তি দান করুন। 

৩য়ঃ

প্রথমবার- হে আল্লাহ তোমার একক সত্তার উপর আমাদিগকে প্রতিষ্ঠিত রাখিও।

দ্বিতীয়বার- হে আল্লাহ তোমার শ্রেষ্ঠ শ্রবণ শক্তির প্রকাশ আমাদের মধ্যে দান কর।

তৃতীয়বার- হে আল্লাহ তোমার নূরের প্রকাশ আমাদের দৃষ্টি সীমার মধ্যে প্রকাশ করিয়া তোমার প্রকাশ ঘটাও।

চলবে…….

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

7566

মারিফত কি, কেন, প্রয়োজনীয়তা- ২